fbpx
Creative Clan ব্লগ গ্রাফিক ডিজাইন গ্রাফিক ডিজাইন কিভাবে শিখবেন? কোথায় শিখবেন?
গ্রাফিক ডিজাইন কিভাবে শিখবেন? কোথায় শিখবেন?

গ্রাফিক ডিজাইন কিভাবে শিখবেন? কোথায় শিখবেন?

গ্রাফিক ডিজাইন কিভাবে শিখবেন? কোথায় শিখবেন?

গ্রাফিক ডিজাইন বর্তমানে বেশ জনপ্রিয় একটি পেশা, সম্মানজনক এবং রয়েছে ঝামেলা বিহীন কর্মক্ষেত্র। এই পেশা অত্যাধিক জনপ্রিয় হওয়ার আরেকটি মুল কারণ হচ্ছে গ্রাফিক ডিজাইনারদের কর্মক্ষেত্র দেশের গণ্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক জব মার্কেট। ডিজাইনের আন্তর্জাতিক কর্মক্ষেত্রকে আমরা ফ্রীল্যাঞ্চিং নামেও বলে থাকি।

আপনি গ্রাফিক ডিজাইন শিখার বিষয়ে আগ্রহী হলে আপনাকে বেশ কিছু বিষয়ে জানতে হবে। যাতে করে আপনি সহজে পরিকল্পনা করতে পারেন। এই পোস্টে আমি আপনাকে ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করবো গ্রাফিক ডিজাইনের কর্ম ক্ষেত্র, গ্রাফিক ডিজাইন কোথায় এবং কিভাবে শিখবেন, ডিজাইনার হিসাবে কেমন টাকা আয় করা যায় এবং ডিজাইনারদের শিক্ষাগত যোগ্যতা কেমন লাগে।

বাংলাদেশে গ্রাফিক ডিজাইনারদের কর্মক্ষেত্র ও সম্ভাবনা

দেশের প্রায় প্রতিটা ছোটবড় কর্পোরেট এবং বিজনেস প্রতিষ্ঠানে গ্রাফিক ডিজাইনারের চাহিদা রয়েছে। এই ছাড়াও রয়েছে অসংখ্য ডিজাইন হাউজ। বর্তমানে ইন্টারনেট বিজনেস এর যুগে প্রত্যেকটা প্রতিষ্ঠান সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের পনের প্রচারের জন্যে নিয়মিতই ডিজাইনের প্রয়োজন হয়, তাহলে বুঝতেই পারছেন বাংলাদেশে এর কত বিশাল কর্মক্ষেত্র রয়েছে।


গ্রাফিক ডিজাইনারদের আন্তর্জাতিক কর্মক্ষেত্র (ফ্রিল্যান্সিং)

বর্তমানে ফ্রীল্যাঞ্চিং শব্দটি মোটেও অপরিচিত নয়। ফ্রীল্যাঞ্চিং পেশার ক্ষেত্রে গ্রাফিক ডিজাইন অন্যতম একটি পেশা। কারণ গ্রাফিক ডিজাইনাররা একই সাথে একটিভ এবং পেসিভ আর্নিং করতে পারে। ডিজাইনারদের একটিভ আয় এর সব থেকে বড় কর্মক্ষেত্রগুলা হচ্ছে আপওয়ার্ক এবং ফাইভার মার্কেটপ্লেস। পেসিভ আয়ের জন্যও অনেক মার্কেটপ্লেস রয়েছে, তার মধ্যে গ্রাফিকরিভার অন্যতম। এছাড়াও আমাদের ক্রিয়েটিভ ক্লেন মেম্বারদের জন্যে রয়েছে গ্রাফিক রিজার্ভ।


গ্রাফিক ডিজাইনারদের আয় কেমন? মাসে কত টাকা আয় করে?

গ্রাফিক ডিজাইনারদের দেশীয় প্রতিষ্ঠান গুলোতে বর্তমানে ১৫,০০০ থেকে ৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত মাসিক বেতন হয়ে থাকে।

আন্তর্জাতিক মার্কেটে একজন ডিজাইনার একটিভ এবং পেসিভ আয়ের মাধ্যমে ২০,০০০ থেকে শুরু করে ২,০০,০০০ বা ততোধিক টাকা আয় করতে পারে। এই ক্ষেত্রে তার যোগ্যতা এবং কমিউনিকেশন দক্ষতার উপর তার আয়ের পরিমাণ নির্ভর করে।


গ্রাফিক ডিজাইন কোথায় এবং কিভাবে শিখবেন

আপনি গ্রাফিক ডিজাইন শিখতে আগ্রহী হলে আপনকে প্রথমে জানতে হবে ডিজাইনের জন্য কি কি সফটওয়্যার প্রয়োজন হয়। ওই সফটওয়্যার গুলোর বেসিক ব্যাবহার আপনাকে প্রথমে ঘরে বসেই জানাটা উত্তম। কারণ আপনি কোন প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়ে ৪০ – ৫০ টা ক্লাসের মাধ্যমে বেসিক থেকে শিখাটা প্রায় অসম্ভব, বরং আপনি হয়ত ২-৩ টা ক্লাস করার পর আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন।

দেশে গ্রাফিক ডিজাইন শিখানোর জন্য হাজারো আটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে, আপনি কোথাও ভর্তি হওয়ার আগে তাদের সম্পর্কে এবং ট্রেইনার সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে বুঝে তার পর এ্যাডমিশন নিবেন। শুধু মাত্র তাদের বিজ্ঞাপন বা ছাত্রদের শিখিয়ে দেওয়া ভিডিও টেস্টিমোনিয়াল দেখে বিভ্রান্ত হবেন না।

আমার সাজেশন হল আপনি কোন প্রতিষ্ঠানে শিখার আগে ইউটিউব থেকে ডিজাইনার বেসিক জেনে নিন, কিংবা কোন ডিভিডি কোর্স নিতে পারেন। প্রিমিয়াম ডিভিডি ইউটিউব থেকে ভালো হবে যেহেতু ডিভিডিতে ভিডিও সিরিজ আকারে থাকে এবং মূল্যও হাতের নাগালে।

ডিভিডি থেকে আপনি বেসিক থেকে প্রফেশনাল লেভেল পর্যন্ত গাইডলাইন পাবেন, পাশাপাশি আপনি তাদের থেকে যে কোন সময় প্রয়োজনীয় সাপোর্ট অনলাইনে পাবেন। তবে ইউটিউবে কিছুদিন টাইম দিলেই আপনি বুঝতে পারবেন গ্রাফিক ডিজাইন শিখার জন্যে আপনাকে কতটা পথ পাড়ি দিতে হবে।

এইটা মাথায় রাখবেন, যেই ডিজাইন আপনাকে সম্মান দিবে এবং ভালো আয়ের ক্ষেত্র তৈরি করবে সেটাতে আপনি সময় এবং অর্থ বিনিয়োগ করাটা বিফলে যাবে না।


গ্রাফিক ডিজাইনারদের শিক্ষাগত যোগ্যতা কেমন হতে হয়?

দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলা ডিজাইনার এর পোস্টের জন্য ডিজাইনে ডিপ্লোমা বা ফাইন আর্টসে অনার্স চেয়ে থাকে এবং এইটা ও বলা থাকে কাজের যোগ্যতা ভাল হলে শিক্ষাগত যোগ্যতা বেপার না। আর আন্তর্জাতিক বাজারে কাজের জন্যে প্রাতিষ্ঠানিক লেখা পড়া একেবারেই জরুরি না, এইখানে আপনাকে কাজের যোগ্যতা দিয়ে ক্যারিয়ার গড়তে হবে। তবে একটিভ আয়ের ক্ষেত্রে আপনার সবচেয়ে বড় যোগ্যতা হচ্ছে ইংলিশে কমিউনিকেশন ভালো পারতে হবে। তবে পেসিভ আয়ের ক্ষেত্রে বেসিক জানলেই হবে।

লেখার পড়ার বিষয়ে দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক উভয় জব বাজারের জন্যে আমার সাজেশন হচ্ছে আপনাকে মিনিমাম HSC বা সমমান এর যোগ্যতা সম্পন্ন হওয়াই উত্তম।

অন্যান্য যে পোস্টগুলো আপনার পড়া প্রয়োজন

Related Posts